শনিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭
  • প্রচ্ছদ » টকশো » পার্বত্য এলাকায় জনসংহতি সমিতির নামে চলছে চাঁদাবাজি



পার্বত্য এলাকায় জনসংহতি সমিতির নামে চলছে চাঁদাবাজি


নাঈম ভিশন
০৫.০৯.২০১৭

nayeemvisiontv 1নাঈম ভিশন ডেস্ক : সারা বাংলাদেশেই চাঁদাবাজি চলছে। পার্বত্য এলাকাগুলোতে বিভিন্ন্ সংগঠন আছে যারা অনেক স্থান থেকে চাঁদা আদায় করে। সবচেয়ে বেশি চাঁদা আদায় হয় বনজ সম্পদ ও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প থেকে। এছাড়াও যানবাহন, NIKE AIR MORE UPTEMPO Air Max 2017 Dames বিভিন্ন টোল কেন্দ্র, New Balance 997.5 femme বাজার ডাক, Maglie Detroit Pistons ফসলি জমি, Memphis Grizzlies adidas gazelle

  • NIKE AIR ZOOM VOMERO 12
  • জুম চাষ থেকে চাঁদা আদায় করা হয়। এমনকি চাকরিজীবীদেরও বার্ষিক চাঁদা দিতে হয়। পার্বত্য এলাকাগুলোতে চলাচলকারী প্রতিটি যানবাহনের মালিক, Grey Black Jordan Shoes Canotta Los Angeles Lakers Geno Smith College Jerseys ব্যবসায়ী ও ঠিকাদারকে বার্ষিক চাঁদা দিয়ে পরবর্তী বছরের টোকেন সংগ্রহ করতে হয়। পার্বত্য এলাকায় জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) ও ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক দল বিভিন্নভাবে বিভিন্ন ব্যানারে চাঁদাবাজি করছে। চাঁদাবাজির প্রতিষ্ঠানিকীকরণ করা হয়েছে, Buty Adidas Damskie সেটা অস্বীকার করা যাবে না। রবিবার রাতে সময় টিভির সম্পাদকীয় অনুষ্ঠানে এমন মন্তব্য করেন সাবেক তথ্য কমিশনার অধ্যাপক ড. St. Johns Kanken Pas Cher

  • air max 2017 blu donna
  • সাদেকা হালিম। অনুষ্ঠানে আরও ছিলেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও কলামিস্ট মেজর জেনারেল (অব:) মোহাম্মদ আলী শিকদার। অধ্যাপক ড. Parajumpers Parka air max pas cher সাদেকা হালিম আরো বলেন, রাঙ্গামাটিতে জেএসএস ও ইউপিডিএফ প্রায় সমানতালে চাঁদাবাজিতে ব্যস্ত। বিভিন্ন মতাদর্শে এ দু’দলের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দিলেও চাঁদাবাজিসহ তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে, Markus Kuhn Braxton Miller College Jerseys nike air huarache italia সরকারবিরোধী যে কোন আন্দোলনে একাতœ হয়ে মাঠে থাকে। এসব সংগঠনের ছাত্র, Womens Air Jordan 3.5 Hollister Soldes Goedkoop Nike Air Max 2016 যুব, Soldes Nike Pas Cher নারী সংগঠনসহ দলের শাখা-প্রশাখা প্রত্যন্ত এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত। চাঁদা নেওয়ার অভিযোগও তাদের দিকেই সবচেয়ে বেশি। তারা সরকারি বেসরকারি চাকরিজীবীদের কাছ থেকে মাসিক ভিত্তিতে চাঁদা নেয়। কৃষিজীবীদের কাছ থেকে মৌসুম ভিত্তিতে এবং ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময় চাঁদা সংগ্রহ করে। আর ঠিকাদারদের কাছ থেকে কাজের প্রাক্কলিত মূল্যের ১০%শতাংশ হারে চাঁদা আদায় করা হয়। মোট কথা সরকারের বিভিন্ন সংস্থার উন্নয়ন কাজের হাজার হাজার কোটি টাকা পার্বত্য এলাকার উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দিলেও এর সিংহভাগ পার্বত্য চট্টগ্রামের এসব সশস্ত্র সন্ত্রাসী দলকে চাঁদা বাবদ দিতে হয়। প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলেছেন, Jordan CP3 এসব সন্ত্রাসী গ্রæপকে চাঁদা না দিয়ে পার্বত্য এলাকায় কোন উন্নয়ন কাজ করা সম্ভব নয়। তিনি আরো বলেন, ULTRA BOOST Uncaged Nike Free 3.0 Cheap Nike Trainers UK এই সব চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য প্রথমে কেন্দ্র থেকে ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু যারা স্থানীয় পর্যায়ে আছেন তারা প্রথমে সেটি বন্ধের জন্য কথা বলুক। আমরা জানি,